শিরোনাম
ব্যালন ডি’অরের জন্য জায়গা রেখেছেন রোনালদো!

ব্যালন ডি’অরের জন্য জায়গা রেখেছেন রোনালদো!

উদ্বোধন হলো ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর ব্যক্তিগত জাদুঘর ‘সিআর সেভেন মিউজিয়াম’-এর। ৫০০ বর্গমিটার আয়তনের জাদুঘরে থরে থরে সাজানো হয়েছে পর্তুগিজ উইঙ্গারের জেতা ১২৫টির বেশি ট্রফি, দলীয় অর্জন, দুটো গোল্ডেন বুট, শত শত ছবি, ব্যবহূত জার্সি, বুট, স্মরণীয় ম্যাচের বল প্রভৃতি। রোনালদো উদ্বোধনের সময় জানিয়ে রাখলেন, ব্যালন ডি’অর ও লা দাসিমা’র জন্য অতিরিক্ত জায়গা রাখা হয়েছে জাদুঘরে!

১৩ জানুয়ারি ফিফা ব্যালন ডি’অর পুরস্কার ঘোষণার আগে রোনালদোর এমন মন্তব্য স্বাভাবিকভাবেই আলোচনার খোরাক জুগিয়েছে। রোনালদো অবশ্য বিষয়টি বুঝিয়েছেন এভাবে, ‘যত ট্রফি জিতেছি সবই গুরুত্বপূর্ণ। তবে জাদুঘরে আরও শূন্য ঘর রয়েছে। সুনির্দিষ্টভাবে কোনোটির (ট্রফি) কথা বলতে চাই না। আরও পুরস্কার জিততে চাই। যদি ব্যালন ডি’অর আসে, সেটির জন্যও অতিরিক্ত কক্ষ রয়েছে।’ সাংবাদিকেরা লা দেসিমার (রিয়ালের জন্য দশম ইউরোপিয়ান কাপ) কথা জিজ্ঞেস করলে সিআর সেভেনের উত্তর, ‘লা দেসিমার জন্যও জায়গা সংরক্ষিত রয়েছে।’Ronaldo-2

রোনালদোর একটি মোমের মূর্তি রয়েছে জাদুঘরে। মূর্তি নিয়ে সাংবাদিকেরা নন, উল্টো তিনিই প্রশ্ন করলেন, ‘মূর্তিটি দেখতে কি আমার মতো লাগছে?’ এরপর কৌতুকের সুরে বললেন, ‘না, মানে ভাবছিলাম, আমার চেয়ে বেশি হ্যান্ডসাম দেখাচ্ছে কি না!’ জাদুঘর উদ্বোধনকালে স্মরণ করলেন তাঁর জীবনে অবদান রাখা সব মানুষকেই। বিশেষ কৃতজ্ঞতা জানালেন সাবেক ম্যানইউ কোচ স্যার আলেক্স ফার্গুসনকে, যাঁর ছায়ায় তিনি ছিলেন ছয় ছয়টি বছর। আজকের রোনালদো হওয়ার পেছনেও রয়েছে এ মানুষটির অবদান।

বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের নানা স্মারক দিয়ে সাজানো জাদুঘরটা ঘুরে দেখতে হলে যেতে হবে রোনালদোর জন্মস্থান আটলান্টিক মহাসাগরের দ্বীপ ম্যাডেইরার রাজধানী ফুঞ্চালে। সেই শৈশবে ছেড়েছিলেন জন্মভূমি। সে কথাও বললেন রিয়াল মাদ্রিদ ফরোয়ার্ড, ‘বিসর্জন ছাড়া কিছুই জয় সম্ভব নয়। মাত্র ১১ বছর বয়সে ম্যাডেইরা ছেড়েছি। এরপর খেলাধুলায় জড়িয়ে পড়েছি। জন্মভূমি ছাড়াটা ছিল ভীষণ কষ্টদায়ক অভিজ্ঞতা।’ নিজের জন্মস্থানে জাদুঘর উদ্বোধন করে ভীষণ তৃপ্ত রোনালদো, ‘এটি আমার জন্য একটি বিশেষ দিন। জন্মভূমির মানুষের জন্য কিছু করার সুযোগ হলো।’ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তাঁর পরিবারের সদস্য, বান্ধবী ইরিনা শায়াক, পর্তুগিজ ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট ফার্নেন্দো গোমেজ, পর্তুগাল কোচ পাওলো বেনতো, সতীর্থ পেপে প্রমুখ।